বুকের দুধ খাওয়ানো সময় এড়িয়ে চলবেন যে খাবার

 



নবজাতক শিশুর সাথে একজন নারী পরিপূর্ণ মাতৃত্বের স্বাদ লাভ করেন। শিশু জন্মের সাথে সাথে জন্ম হয় একজন মায়ের। সদ্য জন্মানো এই দুই সত্ত্বার প্রয়োজন পুষ্টিকর খাবার। মায়েদের খাবারে উপরেই নির্ভর করে সন্তানদের বুকের দুধে লাভ। এ সময়ে তাই পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ যেমন প্রয়োজন, তেমনই প্রয়োজন খাদ্য গ্রহণে সতর্ক থাকাম কেননা, কিছু কিছু খাবার এ সময়ে মা অথবা শিশু অথবা দুজনেরই শরীরের উপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। 


আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা জেনে নিবো তেমনই কিছু খাবার সম্পর্কে যা এ সময়ে শিশুদের ঊপর বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে। 



কাঁচা শাকসবজি


মায়েদের সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় ফুলকপি, বাঁধাকপি এবং ব্রোকলির মতো কাঁচা শাকসবজি খাদ্য তালিকায় না রাখাই উত্তম। কেননা, এসকল শাকসবজি হজম করা তুলনমূলকভাবে কঠিন। যা কিনা মা এবং শিশু উভয়ের মধ্যে গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে। সাধারণত কাঁচা শাকসবজিতে ক্ষতিকারক ব্যাকটিরিয়া বা কীটনাশক থাকে। যা বুকের দুধের মাধ্যমে সরাসরি শিশুর শরীরে প্রবেশ করে থাকে। এতে নবজাতক এই সমস্যায় ভুগে। 


এ থেকে সুরক্ষা থাকতে শাকসবজি ভালোকরে রান্না করে খেতে হবে। এ সময় বেশি পেঁয়াজ খাওয়া থেকেও নিজেকে বিরত রাখুন। নাহলে শিশুর মাঝে গ্যাসজনিত সমস্যা বেশী দেখা যাবে।


ক্যাফেইন


বুকের দুধ খাওয়াচ্ছেন এরকম মায়েদের ক্যাফেইন জাতীয় খাদ্য, পানীয় ও মেডিসিন গ্রহণ থেকে বিরত থাকা উচিত। কেননা ক্যাফেইন বুকের দুধের মাধ্যমে সরাসরি শিশুর শরীরে প্রবেশ করে থাকে। এতে শিশুর ঘুমাতে অসুবিধা দেখা দেয়। অতিরিক্ত ক্যাফেইন গ্রহণ করলে মা এবং শিশু দুইজনের মাঝেই ডিহাইড্রেশন ব পানি শুন্যতা দেখা দিতে পারে। বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় কফি, চা এবং এনার্জি ড্রিংকের মতো পানীয়গুলো পান না করায় মায়েদের জন্য ভালো। এর বিপরীতে ভেষজ চা বেছে নেয়া যেতে পারে।


পারদযুক্ত মাছ


বেশি রসালো মাছে প্রচুর পরিমাণে পারদ বিদ্যমান থাকে। যা কিনা মানুষের জন্য ক্ষতিকারক বিষাক্ত ধাতু হিসেব চিহ্নিত। বিশেষ করে, গর্ভবতী মহিলা, সদ্য মা এবং ছোট বাচ্চাদের জন্য একে ক্ষতিকর হিসেবে অবহিত করা হয়। তাই সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় টিনজাত টুনা মাছ, সোর্ডফিশ, মার্লিন, এবং এসকোলার জাতীয় মাছ খাওয়া থেকে নিজেকে দূরে রাখুন। এ সব মাছ স্নায়ুতন্ত্র এবং মস্তিষ্কের বিকাশকে প্রভাবিত করে। এর বিপরীতে এ সময়ে সালমন, চিংড়ি এবং তেলাপিয়ার মতো মাছগুলো খাদ্য তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।


ভেষজ


সন্তানকে বুকের দুধট খাওয়ানোর সময় যে কোন ভেষজ খাবার খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের কাছ থেকে জেনে নিতে হবে। ভেষজ খাবার প্রচুর পরিমাণে খাওয়া হলে বুকের দুধের সরবরাহ কমে যেতে পারে বলে ধারণা করা হয়ে থাকে। তাই এর ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা পেতে ভেষজ খাবার থেকে সতর্ক থাকুন।


পরিশেষে এই কথাই মনে রাখবেন। আপনার নিজের সন্তান ও নিজের সাস্থ্য ঠিক রাখার দায়িত্ব সম্পূর্ণ আপনার উপর নির্ভরশীল। এতে অবহেলা করা মনে নিজেকে ও নিজের সন্তানকে সাস্থ্য ঝুঁকির মাঝে ফেলে দেয়া। 




Post a Comment

0 Comments